স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন
| |

ভাবসম্প্রসারণঃ স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন

আজকের পোস্টে আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাবসম্প্রসারণ শেয়ার করব “ স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন“। এই ভাবসম্প্রসারণটি আশা করি তোমাদের পরীক্ষায় কমন আসবে। আমরা এইভাবসম্প্রসারণটি যত সম্ভব সহজ রাখার চেষ্টা করেছি – তোমাদের পড়তে সুবিধা হবে। চলো শুরু করা যাক।

স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন

মূলভাব: একটি পরাধীন জাতির পক্ষে স্বাধীনতা অর্জন করা অত্যন্ত কঠিন। কিন্তু স্বাধীনতা লাভের পর সে স্বাধীনতাকে রক্ষা করা আরও বেশি কষ্টের।

সম্প্রসারিত ভাব : স্বাধীনতা অর্জিত হলেই তা চিরস্থায়ী হবে এমনটি নয়। তাই স্বাধীনতা রক্ষায় জাতিকে থাকতে হয় সদাজাগ্রত। মানুষ মাত্রই স্বাধীনতাপ্রিয়। যুগ যুগ ধরে দেশে দেশে মানুষ স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে সংগ্রাম করে আসছে। এ সংগ্রামে অগণিত মানুষ আত্মাহুতিও দিয়েছে। বহিঃশত্রু ও শোষকশ্রেণির শত অত্যাচার, অনাচার, নিপীড়ন সহ্য করেও মানুষ সর্বদাই স্বাধীনতা অর্জনের লক্ষ্যে সংগ্রাম করেছে। এ থেকে বোঝা যায়, স্বাধীনতা অর্জন কতটা কঠিন। কিন্তু স্বাধীনতা অর্জনের আনন্দে আত্মহারা হয়ে দায়িত্ববোধকে শিথিল হতে দেওয়া যাবে না। কেননা স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে তা রক্ষা করা আরও বেশি কঠিন। স্বাধীনতা অর্জনের পরপরই একশ্রেণির মানুষ স্বাধীনতাকে নিজেদের স্বার্থেই ব্যবহার করতে চায় । তারা আইনকে উপেক্ষা করে, ন্যায়কে করে পদদলিত। সামান্য ব্যক্তিস্বার্থে দেশ ও জাতির স্বার্থ জলাঞ্জলি দেয় তারা। তাদের অপকর্মের ফল হয় নেতিবাচক। দেশ হয়ে পড়ে পরনির্ভর কিংবা বহিঃশক্তির হাতের পুতুল। এভাবে প্রকৃত স্বাধীনতা হতে পারে বিপর্যস্ত। এদিক থেকে চিন্তা করলে স্বাধীনতা রক্ষা করা বেশ দুরূহ। বস্তুত স্বাধীনতা রক্ষার জন্যে চাই প্রবল দেশপ্রেম ও বিপুল প্রণোদনা। আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত, উন্নত জাতিগঠন ছাড়া দেশ ও জাতি অগ্রসর হতে পারে না। স্বাধীনতা ক্লিক করতে হলে দেশে গণতন্ত্র, আইনের শাসন, সুশীল সমাজ গঠনের বাস্তব প্রক্রিয়া অব্যাহত রাখা দরকার। পরকার অন্ন, বস্ত্র, স্বাস্থ্য, চিকিৎসা, আবাসন ইত্যাদি মৌলিক অধিকার নিশ্চিত করা। দরকার সমাজে বৈষম্য ও পরদের অবসান। এর জন্যে প্রয়োজন স্বনির্ভরতা ও সমৃদ্ধি।

See also  অনুচ্ছেদঃ শ্রমের মূল্য

মন্তব্য : প্রকৃতপক্ষে, জাতীয় সমৃদ্ধিই হচ্ছে স্বাধীনতার থাকবচ। এটি অর্জন সহজ নয় । এ জন্যে চাই ত্যাগ, সংকল্প, পরিশ্রম ও ঐক্য।

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে ভাব সম্প্রসারণ যেটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই ভাব সম্প্রসারণ নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *