স্বদেশের উপকারে নেই যার মন, কে বলে মানুষ তারে? পশু সেই জন
| |

ভাবসম্প্রসারণঃ স্বদেশের উপকারে নেই যার মন, কে বলে মানুষ তারে? পশু সেই জন

আজকের পোস্টে আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাবসম্প্রসারণ শেয়ার করব “ স্বদেশের উপকারে নেই যার মন, কে বলে মানুষ তারে? পশু সেই জন“। এই ভাবসম্প্রসারণটি আশা করি তোমাদের পরীক্ষায় কমন আসবে। আমরা এইভাবসম্প্রসারণটি যত সম্ভব সহজ রাখার চেষ্টা করেছি – তোমাদের পড়তে সুবিধা হবে। চলো শুরু করা যাক।

স্বদেশের উপকারে নেই যার মন, কে বলে মানুষ তারে? পশু সেই জন

মূলভাব: জন্মভূমির প্রতি ভালোবাসা মানুষের সহজাত বৈশিষ্ট্য। এ গুণ যার মধ্যে নেই, সে দেশ বা জাতির কার মানুষ হিসেবে তুচ্ছ।

সম্প্রসারিত ভাব : সমাজের কাছে সে মর্যাদার আসন পেতে পারে না; বরং সে পায় মানুষের ঘৃণা ও নিন্দা। যেসব মহৎ গুণ অন্য প্রাণী থেকে মানুষকে আলাদা করেছে তার একটি হচ্ছে স্বদেশপ্রেম। জন্মভূমি মানুষের অস্তিত্বের সঙ্গে সম্পর্কিত। প্রতিটি মানুষ জন্ম লাভ করে আপন আপন জন্মভূমির কোলে । তার ধুলো-মাটিতে ও আলো-বাতাসে সে বড় হয়। জন্মভূমির প্রাকৃতিক সম্পদে পরিপুষ্ট হয় তার জীবন। তাই স্বদেশকে ভালোবাসা, দেশ ও জাতির উন্নতির জন্যে কাজ করা প্রতিটি মানুষের অবশ্য কর্তব্য। মানুষের জীবনে স্বদেশের অবদান এত বিরাট যে, মাতৃভূমি তার কাছে সবচেয়ে প্রিয় বস্তু হিসেবে বিবেচিত হয়। স্বদেশের জন্যে মানুষের ভালোবাসা প্রকাশ পায় দেশের জন্যে কাজ করার মধ্য দিয়ে। সত্যিকারের দেশপ্রেমিক দেশের জন্যে ব্যক্তিগত স্বার্থ বিসর্জন দেন। দেশের স্বাধীনতা ও সম্মান রক্ষার জন্যে জীবন উৎসর্গ করতেও তিনি দ্বিধা করেন না। আমাদের দেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের বীর শহিদেরা দেশের জন্যে জীবন উৎসর্গ করে স্মরণীয় বরণীয় হয়েছেন। অন্যদিকে স্বদেশের প্রতি যার মমত্ববোধ নেই, সে দেশের কল্যাণের ব্যাপারে বিমুখ থাকে। দেশের সাথে বিশ্বাসঘাতকতা করতেও সে দ্বিধাবোধ করে না। দেশদ্রোহী মানুষদের কর্মকাণ্ডে দেশের মানুষের অনিষ্ট সাধিত হয় । তাদের কারণে অনেক ক্ষেত্রে দেশের উন্নয়ন বাধাগ্রস্ত হয়। তাই এ ধরনের মানুষ সকলের দ্বারা হয় ঘৃণিত ও অসম্মানিত । তাদের সত্যিকার অর্থে মানুষ বলে গণ্য করা যায় না। বস্তুত, দেশের জন্যে কাজ করতে পারলে সত্যিকারের মানুষের মতো মানুষ হওয়া যায়।

See also  অনুচ্ছেদঃ শৈশবস্মৃতি

মন্তব্য : যাদের অন্তরে দেশপ্রেম নেই তারা নিতান্তই আত্মসর্বস্ব ও স্বার্থপর মানুষ। স্বদেশকে ভালোবাসাই মানুষের প্রকৃত ধর্ম। 

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে ভাব সম্প্রসারণ যেটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই ভাব সম্প্রসারণ নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *