শৈশবস্মৃতি
| |

অনুচ্ছেদঃ শৈশবস্মৃতি

আজকের পোস্টে আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুচ্ছেদ শেয়ার করব “শৈশবস্মৃতি“। এই অনুচ্ছেদটি আশা করি তোমাদের পরীক্ষায় কমন আসবে। আমরা এই অনুচ্ছেদটি যত সম্ভব সহজ রাখার চেষ্টা করেছি – তোমাদের পড়তে সুবিধা হবে। চলো শুরু করা যাক।

শৈশবস্মৃতি

শৈশব মানবজীবনের শ্রেষ্ঠ সময়। এ সময়ের আনন্দ-বেদনা সবই হয় শর্তহীন, অকৃত্রিম। শৈশবস্মৃতি তাই সবার কাছেই মধুময়। শৈশবের স্মৃতি রোমন্থন করে আবেগতাড়িত হতে ভালোবাসে সকলেই। আমার শৈশব জীবনের স্মৃতিও অত্যন্ত মনোহর। আমার জন্ম যমুনা নদীতীরে ছায়াঢাকা এক গ্রামে। শৈশব কেটেছে গ্রামীণ উন্মুক্ত পরিবেশে। গ্রামের অবারিত মাঠ, নদীতীর, বিদ্যালয় ইত্যাদিতে জড়িয়ে আছে কত স্মৃতি। সেগুলো এখনো আমার স্মৃতিতে উজ্জ্বল। বর্ষাকালে বাড়ির পেছনের বিশাল ফসলের মাঠটি পরিণত হতো দিক-চিহ্নহীন বিলে। ছোট্টো ডিঙিতে চড়ে তার বুকে ভেসে ভেসে মাছ ধরা আর শাপলা তোলার স্মৃতি কখনো ভোলার নয়। গ্রীষ্মে আম-জাম- কাঁঠালের গাছগুলোই যেন হয়ে উঠত আমাদের ঘরবাড়ি। শীতকালে মায়ের গা ঘেঁষে গরম গরম পিঠা খাওয়ার অভিজ্ঞতার সত্যিই কোনো তুলনা নেই। গ্রামের সেই প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সমস্বরে নামতা পড়া, খেলার মাঠে সারা বিকেল দৌড়ঝাঁপ বা বাড়ির পুকুরে ঘণ্টার পর ঘণ্টা দাপাদাপি করে শৈশব কেটেছে আমার । বিভিন্ন উৎসবে আনন্দ যেন কোনো বাঁধ মানত না। তবে কিছু বেদনার স্মৃতিও রয়েছে। দুষ্টুমির জন্যে হেডস্যারের কড়া বকুনি বা বাবার হাতে মারও খেয়েছি বহুবার। কিন্তু আজকের দিনে এসে সেই স্মৃতিগুলোকেই বড়ো মধুর মনে হয়। কেবল ইচ্ছে হয়, আহা, যদি একটিবার ফিরে যেতে পারতাম সেই সময়ে! কিন্তু তা তো আর হওয়ার নয়। আমার একমাত্র সম্বল । সেগুলোকে রোমন্থন করে সেই দুরন্ত শৈশবের কল্পনায় হারিয়ে যাই প্রায়ই।

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে অনুচ্ছেদ যেটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই অনুচ্ছেদ নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

See also  ভাবসম্প্রসারণঃ স্বাধীনতা অর্জনের চেয়ে স্বাধীনতা রক্ষা করা কঠিন

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *