গ্রিনহাউজ ইফেক্ট
| |

অনুচ্ছেদঃ গ্রিনহাউজ ইফেক্ট

আজকের পোস্টে আমরা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুচ্ছেদ শেয়ার করব “গ্রিনহাউজ ইফেক্ট“। এই অনুচ্ছেদটি আশা করি তোমাদের পরীক্ষায় কমন আসবে। আমরা এই অনুচ্ছেদটি যত সম্ভব সহজ রাখার চেষ্টা করেছি – তোমাদের পড়তে সুবিধা হবে। চলো শুরু করা যাক।

গ্রিনহাউজ ইফেক্ট

শীতপ্রধান দেশে প্রচণ্ড শীতের কারণে গাছপালা জন্মাতে পারে না বলে সেখানে কাচ দিয়ে এক ধরনের ঘর তৈরি করা হয়। সূর্যের আলো কাচ ভেদ করে ভেতরে ঢুকতে পারে এবং ভেতরের পরিবেশ উষ্ণ করে তোলে। কাচ তাপ কুপরিবাহী বলে তাপ বাইরে বের হতে পারে না এবং গাছপালা বেড়ে ওঠার প্রয়োজনীয় উষ্ণতা পায় । এ ঘরকে বলা হয় গ্রিনহাউজ। পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলেও গ্রিনহাউজের অনুরূপ একটি প্রক্রিয়া ক্রিয়াশীল যা গ্রিনহাউজ ইফেক্ট নামে পরিচিত। গ্রিনহাউজ ইফেক্ট হলো এমন একটি প্রক্রিয়া, যার দ্বারা ভূ-পৃষ্ঠ হতে বিকীর্ণ তাপ বায়ুমণ্ডলীয় গ্রিনহাউজ গ্যাসসমূহ দ্বারা শোষিত হয়ে পুনরায় বায়ুমণ্ডলের অভ্যন্তরে ফিরে আসে। ফিরে আসা এই তাপ ভূ-পৃষ্ঠের তথা বায়ুমণ্ডলের গড় তাপমাত্রাকে বাড়িয়ে দেয়। সূর্যের আলো বায়ুমণ্ডল ভেদ করে পৃথিবীতে পৌছায়। ফেরার পথে সেই তাপের একটি অংশ বায়ুমণ্ডলে থাকা কার্বন ডাই-অক্সাইড, জলীয়বাষ্প, মিথেন ও ওজোন নামক গ্যাসের মাধ্যমে শোষিত হয়। বায়ুমণ্ডলের অভ্যন্তরে তাপ রয়ে যাওয়ায় ভূ-পৃষ্ঠের তাপমাত্রা বেড়ে যায়। এ বিষয়টিকে কাজে লাগিয়ে শীতপ্রধান দেশে কাচ দিয়ে গ্রিনহাউজ নির্মাণ করে তাতে উদ্ভিদ উৎপাদন করা হয়। কাচের তৈরি গ্রিনহাউজ বায়ুমণ্ডলের গ্যাসগুলোর মতোই তাপ ধরে রাখে এবং গাছপালার জন্যে উষ্ণতা সরবরাহ করে। এ ক্ষেত্রে গ্রিনহাউজ ইতিবাচক ভূমিকা পালন করলেও গ্রিনহাউজ ইফেক্ট গোটা পৃথিবীর জন্যে হুমকি হয়ে দাঁড়িয়েছে। মানুষের বিভিন্ন কার্যক্রমের ফলে পরিবেশে গ্রিনহাউজ গ্যাস, বিশেষ করে কার্বন ডাই-অক্সাইডের পরিমাণ দিন দিন বেড়েই চলেছে। ফলে ক্রমেই উত্তপ্ত হয়ে উঠছে পৃথিবী। সেই সাথে মেরু অঞ্চলে থাকা বরফ গলার হারও বাড়ছে। এভাবে চলতে থাকলে একসময় পৃথিবীর অনেক অঞ্চল সমুদ্রের পানিতে তলিয়ে যাবে। মানুষসহ সমগ্র জীবজগতের জন্যে যা মহা হুমকির বিষয়। এ পরিস্থিতির আগমন ঠেকাতে হলে মানুষের সচেতন হওয়া ছাড়া অন্য কোনো বিকল্প নেই। পরিবেশ ধ্বংসের যে নির্মম খেলায় মানুষ মেতে উঠেছে তা অবিলম্বে থামাতে হবে। গ্রিনহাউজ গ্যাস সৃষ্টি হওয়ার উপায়গুলো যথাসম্ভব কমাতে হবে। জীবাশ্ম জ্বালানির পরিবর্তে নবায়নযোগ্য জ্বালানি ব্যবহারে মনোযোগী হতে হবে। ব্যাপক ভিত্তিতে বনায়নের উদ্যোগ নিতে হবে। পরিবেশের প্রতি যত্নবান না হলে যে বিশাল ধ্বংসলীলার হুমকি মানব সভ্যতার দিকে ধেয়ে আসছে তাকে বাধা প্রদানের সত্যিই কোনো উপায় নেই ।

See also  অনুচ্ছেদঃ ডিজিটাল বাংলাদেশ

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে অনুচ্ছেদ যেটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই অনুচ্ছেদ নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *